কনটেন্ট রাইটিং এবং আমার অভিজ্ঞতা

  1. অ্যামাজন, ইভেন্ট ব্লগিং, রেগুলার ব্লগিং, এডসেন্স সহ আরো কিছু প্ল্যাটফর্মে নতুন যারা কাজ শুরু করেন তাদের সবার কিছু কমন প্রশ্ন থাকে । যেমন একজন রাইটারকে ১ হাজার ওয়ার্ডের জন্য কত সময় দিতে হবে, কত করে দিতে হবে ইত্যাদি । 🙂
এখানে যেহেতু সবাই অ্যামাজন নিয়ে বেশি চিন্তা করেন তো আমি আপনাদের উদ্দেশ্যই বলছি কথাগুলো । 🙂
একটু ঠান্ডা মাথায় চিন্তা করেন ভাই, একজন রাইটার সব বিষয়ে পারদর্শী না । আর যেহেতু অ্যামাজনে মুলত যে কোন একটা প্রোডাক্ট নিয়েই লেখালেখি করতে হয় সেক্ষেত্রে ওই প্রোডাক্ট সম্পর্কে রাইটারের কোন ধরনের জ্ঞান না থাকাটাই স্বাভাবিক । কিন্তু আপনি চান প্রোডাক্ট সম্পর্কে রাইটার যেন একেবারে সর্বোচ্চ কোয়ালিটি সম্পন্ন একটা কনটেন্ট লিখে দেয় ।
আচ্ছা এইবার নিজে নিজে একটু ভাবুন তো আপনি কোন প্রোডাক্ট সম্পর্কে কিছুই জানেন না । কখনো নামও শুনেন নি ভালো করে ওই প্রোডাক্ট সম্পর্কে, কিন্তু ওইটা নিয়ে এমনভাবে অন্য একজনকে বলতে হবে যেন সে আপনার কথায় পন্যটা কিনে নেয় । তাহলে চিন্তা করেন ওই প্রোডাক্ট সম্পর্কে কি পরিমান রিসার্চ করতে হবে । প্রোডাক্ট সম্পর্কে খুব ভালো ভাবে না জানলে আপনি কি এমন লিখবেন যে আপনার কথায় অন্য কোন ব্যাক্তি পন্যটি কিনে নিবে ?
এখন আসি আমাদের স্বদেশি ভাইদের নিয়ে কিছু কথা । -_-
আপনারা তো মাঝে মাঝে লোকাল রাইটার নিয়ে খুব হাসি তামাশা করেন । হ্যায় করে কথা বলেন মাঝে মাঝে ।
তাহলে এইবার আমি লোকাল ক্লায়েন্ট নিয়ে কিছু কথা বলি । অভিজ্ঞরা কখনোই যে কাজটা করেন না নতুন ক্লায়েন্টরা এইসব করে থাকেন । ( না জেনেও করে থাকতে পারেন ) 🙂
আমি কাউকে হ্যায় করে কিছু বলছি না । দুনিয়াতে সব ধরনের লোকজনই আছে । নতুন যারা আসছেন তারা স্বাভাবিক ভাবেই তাদের জিজ্ঞাসা থাকে কতদিন লাগবে এবং কত টাকা নিবেন । রেইট শুনার পরে বলবে ওহ মাগো, এত টাকা কেন ভাই ? আপনি তো শুধু এইটা এইটা ওইটা ওইটা নিয়ে লিখবেন । আপনি যতবার An Apple, A Dog লিখবেন ততবার An/ A শব্দের জন্য আমাকে টাকা খরচ করতে হবে??? এইটা কোন কথা ???? !!!! এই হলো ভাই কিছু লোকাল ক্লায়েন্টদের মন মানুষিকতা । 🙁 🙁
একটা তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে কথা শেষ করছি ।
আমি এই গ্রুপেরই অনেকের জন্য আর্টিকেল লিখেছি । এই গ্রুপের একেবারে এক্সপার্ট লেভেলের কয়েকজনের জন্য আর্টিকেল লেখার এবং ওনাদের জন্য টুকটাক ডিজাইনিংয়ের সুযোগ আমার হয়েছিল । এর মধ্যে একজন ভাইয়া বললেন আমার অমুকের জন্য লিখে দিতে হবে। ৩০০০ ওয়ার্ড হোম পেইজ আর্টিকেল । 🙂
ওই “অমুক” ভাইয়া বললেন যে ভাই, যেখানে যেখানে আমার কী-ওয়ার্ড লিখতে হবে ওখানে আপনি “১” লিখে দিবেন । যেখানে “THE” দিতে হবে ওখানে “২” লিখে দিবেন । এইরকম উনি অনেকগুলো শব্দ সিলেক্ট করে করে আমাকে বললেন এইটা রিপ্লেসমেন্টে ওইটা বসিয়ে দিবেন । এভাবে উনি প্রায় ৩০টার বেশি ওয়ার্ড আমাকে দিলেন যেগুলোতে রিপ্লেস করে কোন সংখ্যা বা সিম্বল বসিয়ে দিতে হবে । :3 :3 :3
এখন বলেন তো কারন টা কি ? কারন হলো ওনার কী-ওয়ার্ড টা যদি আমি ৫ বার ব্যবহার করি তাহলে প্রায় ৫০ ওয়ার্ড হয়ে যায় । ধরে নিলাম ৫০ ওয়ার্ডের জন্য আমি নিচ্ছি ৫০ টাকা । কিন্তু কী-ওয়ার্ডের বদলে আমি যদি ৫ বার ১ লিখি তাহলে হলো ৫ টাকা । 😛 😛 😛
এই হলো কিছু লোকাল ক্লায়েন্ট । :3 Content is KING . KING কে কিভাবে ট্রিট করতে হয় এই ব্যাপারটা একটু ভালো ভাবে জেনে নেওয়া উচিৎ । 😛
ভাইরে, আপনি আর্টিকেল দিয়েই তো আপনার সাইট থেকে ইনকাম করবেন । আর্টিকেলের জন্য খরচ করতে এত কিপটামি করেন কেন ? 😛 ভালো রাইটার খুঁজে নেন, টাকা খরচ করেন, আপনিও ইনকাম করেন রাইটারকেও কিছু দেন । সবাই মিলে ভালো থাকেন । 🙂

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *